সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৬ অপরাহ্ন বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম :
পৃষ্ঠপোষকতা পেলে পুনরায় স্কুলমুখী হবে সীমা বাঘায় নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীগনের মনোনয়নপত্র দাখিল। পুলিশের হাতে ইয়াবা সহ স্বামী স্ত্রী আটক। বেলাব উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। সী-প্লেনের আদলে হোভারক্রাফট তৈরি করেছেন ক্ষুদে বিজ্ঞানী শাওন।।  বাকেরগঞ্জে বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক দুঃস্থদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কালিয়া নির্বাচন সামনে রেখে আইনশৃঙ্খলা বিষয় মতবিনিময় সভা বাঘায় মোজাহার হোসেন মহিলা ডিগ্রি কলেজে শিক্ষার্থীদের বিদায় উপলক্ষে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মীর্জাগঞ্জে সাংবাদিকদের উপরে হামলার প্রতিবাদে বাকেরগঞ্জে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত
নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য যোগাযোগ করুন: ০১৭২৬ ০৫ ০৫ ০৮
বগুড়া ধুনট, বিয়ের নামে একাধিকবার শরীর ভোগ, দেয়নি স্ত্রীর মর্যাদা 
/ ৯১ বার
আপডেট সময় : রবিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২১, ৩:২৩ অপরাহ্ন
মোঃ হেলাল উদ্দিন সরকার, ধুনট(বগুড়) সংবাদদাতা #
বগুড়া জেলা ধুনট উপজেলার, চৌকিবাড়ী ইউনিয়ন এর চৌকিবাড়ী পুর্ব পাড়া গ্রামের মোঃ নজর আলী শেখের মেয়ে সাদিয়া খাতুন (২০)কে বারবার পাঁচ লক্ষ টাকা মোহরানা দেখিয়ে বিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করে দিনের পর দিন দেহই ভোগ করা হচ্ছে, দিচ্ছেনা স্ত্রীর অধিকার। ঘটনার বিবরণে সরেজমিনে ঘটনা স্থলে যেয়ে এর সত্যতা মেলে। শুক্রবার ১৫/১০/২০২১ ইং তারিখে ধুনট উপজেলার গোপালনগর ইউনিয়নের সাতপাকিয়া গ্রামের মোঃ গোলাম মোস্তফা (২৩), পিতাঃ মোঃ মোকসেদ আলীর বসতবাড়িতে রাত দশটার সময় যেয়ে দেখা যায় সাফিয়া খাতুন স্ত্রীর মর্যাদা পেতে বাড়ির সামনে বাঁশ ঝাড়ের নিচে দাড়িয়ে আছে। স্ত্রীর মর্যাদাতো দুরের কথা বাড়ির সকলে মিলে টেনেহিঁচড়ে এই বাশঝাড়ের নিচে নিয়ে এসে রেখে যান বলে সাফিয়া খাতুন জানান। সাফিয়া খাতুন বলেন সাতপাকিয়া গ্রামের মোঃ মোকসেদ আলীর ছেলে, মোঃ গোলাম মোস্তফার সাথে স্কুল জীবন থেকে প্রেমের সম্পর্ক। কিশোর জীবন পার করে যৌবনে পদার্পণ করলে, সে সুন্দরী হওয়ায় চারিদিক থেকে বিয়ের প্রস্তাব আসে। বেকার ও কাপুরুষ গোলাম মোস্তফা কখনো বিয়ে করার সৎসাহস নিয়ে এগিয়ে আসেনি। কিন্তু সাফিয়ার বিয়ে হয়ে গেলে তাকে বারবার উত্ত্যাক্ত ও ফুসলাতে থাকে। ফলে ঘটনা জানাজানি হলে সাফিয়ার ভাগ্যে জোটে তালাক। ফিরে আসে বাবার বাড়ি। বেশিদিন থাকতে হয়নি বাবার বাড়িতে। ফুপাতো ভাই সব জেনেশুনেও তাকে বিয়ে করতে রাজি হয় ও বধু বানিয়ে ঘরে তোলে। ভাগ্যর কি নির্মমতা সেখানেও এই গোলাম মোস্তফা আগের মতই উত্ত্যাক্ত ও প্রলোভন দেখানো শুরু করে। যা হবার তাই হলো, কলঙ্কের দাগ কপালে নিয়ে নারীর শেষ আশ্রয়স্থল বাবার বাড়িতে ফেরত আসে, ভর্তি হয় বগুড়া শাহ সুলতান কলেজ।শুরু করে লেখাপড়া, লেখাপড়া করে ভাগ্য পরিবর্তন করার অদম্য উচ্ছাস নিয়ে মনোনিবেশ করে পড়ালেখায়, ঘুচাতে চায় বাবা কাধের যত কলঙ্ক আর যন্ত্রণা। কিন্ত নাছোরবান্দা মোস্তফাও বগুড়া একটি টেকনিক্যাল কলেজে ভর্তি হয়। শুরু হয় অবাদ মেলামেশা। লাগামহীন ঘোড়ার মতো ছুটতে থাকে সাফিয়া মোস্তফা। গোপনে পাঁচ লক্ষটাকা দেনমোহর উল্লেখ করে বিয়ে করে উভয়ই পরিবারেরকে না জানিয়ে। তাদের প্রেম ভালোবাসার প্রমান করতে স্বাক্ষী হয় সাফিয়ার অন্ত সত্বা। নির্মম নিষ্ঠুর গোলাম মোস্তফা সাফিয়ার এই অন্ত স্বত্বা মেডিসিন খাওয়াইয়ে, ক্লিনিকে নিয়ে পেটের বাচ্চা নষ্ট করেন। ঘটনাটি মোস্তফার পরিবার জানার পর পাঁচলক্ষ টাকা দেনমোহর ফেরত দিয়ে দু’জনের মধ্যে ছাড়াছাড়ি করিয়ে নেয়। কিছুদিন এভাবে দুজন দু’দিকে থাকতে পারলেও শেষ পর্যন্ত থাকতে পারেনা। অবশেষে আবার পরিবারকে না জানিয়ে দশলক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য করে গোলাম মোস্তফা, সাফিয়া খাতুনকে বিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করে ও গোপনে স্বামীস্ত্রী হিসেবে চলতে থাকেন। ওদিকে গোলাম মোস্তফার পরিবার তাকে বিয়ে করাতে মরিয়া হয়ে উঠে। এতে গোলাম মোস্তফা স্বানন্দে রাজি হয়ে স্বপ্ন দেখতে থাকে নতুন বিয়ের পিড়িতে বসার। ভুলতে থাকে সাফিয়াকে, সাফিয়া বিষয়টি আঁচ করতে পেরে গোলাম মোস্তফাকে স্ত্রীর উপযুক্ত মর্যাদা দিয়ে তাকে ঘরে তুলে নিতে বলতেই শুরু হয় আরেক নতুন নাটক। গোলাম মোস্তফা, সাফিয়ার উপর শুরু করে নির্মম নির্যাতন, মেরে ফেলার হুমকি দেয় বলেও সাফিয়া আমাদেরকে জানায়। সাফিয়া সাংবাদিকদেরকে কান্না জড়ানো কন্ঠে বলেন, গোলাম মোস্তফা তার পরিবারের অন্যায় আবদার মেনে নিয়ে তাকে ভুলেযেতে বসেছে, অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। গোলাম মোস্তফা তাকে বলছে পরিবারের কথা রাখতে তাকে বিয়ে করতে হবেই। সেক্ষেত্রে সাফিয়া থাকবে বাইরের বউ আর পরিবারের কথায় বিয়ে করা বউ হবে ঘরের।সাফিয়া এসমাজের কাছে জানতে চান সাফিয়ারা আর কতো এভাবে নির্যাতনের শিকার হবে! সমাজের বিত্তবানদের হাতের খেলার পুতুল হিসেবে তারা কতদিন ব্যবহৃত হবে!
এ জাতীয় আরো খবর
আমাদের ফেইসবুক পেইজ