বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:১৫ অপরাহ্ন বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম :
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। বাগেরহাটের রামপালে রাজনগর ইউপি’র নির্বাচনী পথসভা অনুষ্ঠিত বেলাবতে প্রকল্প অবহিতকরণ সভার আয়োজন নড়াইলে ফল ব্যবসায়ী  কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা গৃহপালিত একটি মুরগী হঠাৎ করেই মোরগে রুপান্তরিত হয়ে গেছে বগুড়া ধুনটে হ্যান্ডমাইক নিয়ে রাস্তায় নেমে এলেন মেয়র নিজেই অবৈধ বালু কাটায়  কুয়াকাটা সৈকত।। নিষেধাজ্ঞা শেষে মাছ শিকারে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে উপকূলের জেলেরা রামপালের ফয়লাহাট থেকে র‌্যাবের হাতে কথিত জ্বীনের বাদশা প্রতারক চক্রের সদস্য আটক দক্ষিণের পায়রা সেতু’ উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে সৃষ্টি হলো নতুন ইতিহাস। বিলুপ্ত হলো ফেরী পাড়াপাড়
নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য যোগাযোগ করুন: ০১৭২৬ ০৫ ০৫ ০৮
জেলা পরিষদের লীজকৃত জায়গায় শর্ত ভঙ্গ করে দ্বিতল ও ছাদ নির্মান করায় কচুয়ায় ৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ
/ ৮৭ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:৪৪ অপরাহ্ন

জিসান আহমেদ নান্নু,কচুয়া ॥
কচুয়া উপজেলার রহিমানগর মধ্য বাজারে ৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ করেছে প্রশাসন। গতকাল বুধবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল হাছানের নেতৃত্বে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা হয়। উচ্ছেদকৃত ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান গুলো হচ্ছে, আনোয়ার উল্যাহ’র রাজ হোটেল, শাহজাহান প্রধানীয়ার ইসলামিয়া হোটেল এন্ড সুইটমিট গোলাম মোস্তফার আলামিন সুপার মার্কেট,কামাল হোসেন প্রধানীয়ার জে.কে শপিং সেন্টার ও জাকির হোসেনের আলপনা টেইলার্স। বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও প্রশাসনের লোকজনের উপস্থিতিতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল হাছান জানান, জেলা পরিষদ কর্তৃক বরাদ্দকৃত জায়গা লীজ গ্রহনের পর শর্ত ভঙ্গ করে দ্বিতল ভবন ও ছাদ নির্মান করার অভিযোগে ব্যবসায়ীদের কে ২০১৬ সালে কারন দর্শানো নোটিশ প্রদান করা হয়। উপযুক্ত কারন দর্শানোর জবাব দিতে ব্যর্থ হওয়ায় জেলা পরিষদ তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। মামলার রায়ের অনুসারে চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
এদিকে ক্ষতিগ্রস্থ রাজ হোটেলের মালিক আনোয়ার উল্যাহ ও ইসলামিয়া হোটেল এন্ড সুইটমিটের মালিক মরহুম খলিলুর রহমানের পুত্র শাহজাহান প্রধানীয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ২০১৬ সালে ছাদ নির্মানের বিষয়ে আমাদেরকে নোটিশ দেয়া হলেও পরবর্তীতে নতুন করে আর কোনো নোটিশ দেয়া হয়নি। জেলা পরিষদের জায়গায় লীজ নিয়ে ২০১০ সালে এ বাজারের কয়েকটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে দ্বিতল ও ত্রিতল হিসেবে নির্মান করে ব্যবসায় কার্য পরিচালনা করে আসছে। ওইসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অদ্যাবধি কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। অথচ আমাদের প্রতিষ্ঠান গুলো উচ্ছেদ করে আমাদের প্রতি জুলুম করা হয়েছে। তারা ছাদ নির্মান প্রসঙ্গে বলেন, রহিমানগর বাজারে প্রায়ই চুরি ও অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটছে। তাই চুরি ও অগ্নিকান্ডের কবল থেকে রক্ষা পেতে স্থায়ী ভাবে ছাদ নির্মান করি। আমাদেরকে যদি উচ্ছেদের পূর্বে নোটিশ প্রদান করা হতো তাহলে আমরা এতো বড় ক্ষতির শিকার হতাম না।

এ জাতীয় আরো খবর
আমাদের ফেইসবুক পেইজ