রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:২১ অপরাহ্ন বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম :
মাদক ব্যবসায়ী জাহাঙ্গীর ৪২০ ফেন্সিডিল সহ র‍্যাব-৫ এর হাতে আটক। ছেলে কে ভর্তি করাতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে প্রাণ গেল পিতার। রামপালে বাঁশতলী ইউনিয়নে সূধী সমাবেশ পিরোজপুরের দীর্ঘায় ছাত্র ইউনিয়নের নতুন কমিটি বাকেরগঞ্জে দেশী প্রজাতির মাছ এবং শামুক সংরক্ষন ও উন্নয়ন,  উদ্বুদ্ধকরন সভা অনুষ্ঠিত বরিশালে স্বামী হত্যায় স্ত্রীসহ দুজেনর যাবজ্জীবন কারাদন্ড খাবারের সাথে খেলনা টাকা শিশুদের বিপদগামী করতে পারে। কলাপাড়ায় ঋন খেলাপীর দায়ে ১চেয়ারম্যান সহ ৬ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল।। পৃষ্ঠপোষকতা পেলে পুনরায় স্কুলমুখী হবে সীমা বাঘায় নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীগনের মনোনয়নপত্র দাখিল।
নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য যোগাযোগ করুন: ০১৭২৬ ০৫ ০৫ ০৮
শিবচরে পরিত্যক্ত ঘর থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার
/ ২৫ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:২৬ অপরাহ্ন

 

মো:সোহেল সিকদার মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ
শিবচরে পদ্মা সেতুর এপ্রোচ সড়ক সংলগ্ন একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে দাহ্য জাতীয় পদার্থ দিয়ে মুখমন্ডল ঝলসানো হাত-পা বাঁধা অবস্থায় এক অজ্ঞাত (৪৩) ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই ব্যক্তিকে হত্যা শেষে প্রায় ৭-৮ দিন আগে লাশ ওই পরিত্যক্ত ঘরে ফেলে রাখা হয়েছে বলে পুলিশ ধারণা করছে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, শিবচরে পদ্মা সেতুর এপ্রোচ সড়ক সংলগ্ন মাদবরচর ইউনিয়নের কালাই হাজী কান্দি গ্রামে স্থানীয় মোশারফ দফাদার একটি টিনসেডের ঘর তুলে পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে চাকুরীর সুবাদে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় বসবাস করছেন। সোমবার বিকেলে পরিত্যক্ত ওই ঘরের পাশে স্থানীয় কয়েকজন শিশু খেলছিল। এসময় দূর্গন্ধ পেয়ে শিশুরা ঘরের খোলা দরজায় উকিঁ দিয়ে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে অভিভাবকদের জানায়। পরে স্থানীয় লোকজন শিবচর থানায় খবর দিলে রাত ৮ টার দিক সহকারী পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান, শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ মো: মিরাজুল ইসলাম, পরিদর্শক (তদন্ত) আমির সেরনিয়াবাত, উপ-পরিদর্শক সঞ্জীব জোয়ারদারসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গিয়ে অজ্ঞাতনামা এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মাদারীপুর মর্গে প্রেরণ করে। উদ্ধারকৃত লাশের পা-হাতসহ শরীর শক্ত রশি দিয়ে বাঁধা এবং মুখমন্ডল পেট্রোল বা কোন দাহ্য পদার্থ দিয়ে ঝলসানো অবস্থায় ছিল। পড়নে বাসন্তি রংয়ের গেঞ্জি ও জিন্স প্যান্ট রয়েছে। ওই ব্যক্তিকে হত্যা শেষে প্রায় ৭-৮ দিন আগে পরিত্যক্ত ঘরে এনে ফেলে রাখা হয়েছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

সহকারী পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরন করেছি। ধারনা করা হচ্ছে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে হত্যা শেষে প্রায় ৭-৮ দিন আগে লাশ এখানে এনে দাহ্য বা বিষাক্ত জাতীয় পদার্থ দিয়ে মুখমন্ডল পুড়িয়ে পরিচয় গোপন করার চেষ্টা করা হয়েছে। আমরা লাশের পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা করছি ও হত্যার মূল রহস্য উদঘাটনে কাজ শুরু করেছি।’

এ জাতীয় আরো খবর
আমাদের ফেইসবুক পেইজ