বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫২ অপরাহ্ন বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
শিরোনাম :
সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের ১৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন। বাগেরহাটের রামপালে রাজনগর ইউপি’র নির্বাচনী পথসভা অনুষ্ঠিত বেলাবতে প্রকল্প অবহিতকরণ সভার আয়োজন নড়াইলে ফল ব্যবসায়ী  কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা গৃহপালিত একটি মুরগী হঠাৎ করেই মোরগে রুপান্তরিত হয়ে গেছে বগুড়া ধুনটে হ্যান্ডমাইক নিয়ে রাস্তায় নেমে এলেন মেয়র নিজেই অবৈধ বালু কাটায়  কুয়াকাটা সৈকত।। নিষেধাজ্ঞা শেষে মাছ শিকারে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে উপকূলের জেলেরা রামপালের ফয়লাহাট থেকে র‌্যাবের হাতে কথিত জ্বীনের বাদশা প্রতারক চক্রের সদস্য আটক দক্ষিণের পায়রা সেতু’ উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে সৃষ্টি হলো নতুন ইতিহাস। বিলুপ্ত হলো ফেরী পাড়াপাড়
নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগের জন্য যোগাযোগ করুন: ০১৭২৬ ০৫ ০৫ ০৮
উত্তাল মেঘনায় ১৫ কিলোমিটার সাঁতরে চমক সৃষ্টি করেছেন ৬৩ বছরের এক বৃদ্ধ।পুরস্কারের টাকা দান করলেন মসজিদে
/ ২০৫ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৩:১৫ অপরাহ্ন

 

উত্তাল মেঘনায় ১৫ কিলোমিটার সাঁতরে চমক সৃষ্টি করেছেন ৬৩ বছরের এক বৃদ্ধ। পরে প্রাপ্ত পুরষ্কারের দেড় লাখ টাকা স্থানীয় একটি মসজিদ নির্মাণে দান করার ঘোষণা দেন তিনি। আজ সোমবার সকাল ৮টায় নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার হাইরমারা ইউনিয়নের মনিপুরাঘাট থেকে শুরু হওয়া সাঁতার দুপুর ১২টায় শেষ হয় নরসিংদীর সদর উপজেলা ঘাটে পৌঁছালে। এতে তিনি সময় নেন চার ঘন্টা। শহিদুল ইসলাম নামে ওই বৃদ্ধ উপজেলার আমিরগঞ্জ ইউনিয়নের দঁড়িবালুয়াকান্দি গ্রামের বাসিন্দা। পেশায় তিনি একজন কৃষক।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সাঁতরে রায়পুরার মনিপুরাঘাট থেকে নরসিংদী সদর ঘাট পৌঁছাতে পারলে দেড় লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা দেয় গ্রামবাসী। এতে রাজি হন কৃষক শহিদুল। আজ সোমবার সকালে উপজেলার মনিপুরা ঘাটে ও নদীতে নৌকা নিয়ে সহস্র উৎসুক জনতা শহিদুলের সাঁতার দেখতে ভীড় জমান। উত্তাল মেঘনায় টানা চারঘন্টা সাঁতার কাটেন তিনি। এক সময় ঠিকই পৌঁছে যান কাঙ্খিত লক্ষে। তার এমন জয়ে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয় গ্রামবাসী। পুরস্কারে পুরো দেড় লাখ টাকাই মসজিদ নির্মাণে ব্যয় করবেন বলে জানান শহিদুল ইসলাম।

জানা গেছে, এর আগে পল্লীচিকিৎসক বকুল মিয়া ৩৫ কিলোমিটার সাঁতরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থেকে উপজেলার মনিপুরা ঘাটে পৌঁছান। এতে তিনি সাড়ে ছয় ঘন্টা সময় নেন। পরে ওই ঘটনায় উদ্ধুদ্ধ হয়েই এই সাঁতারে অংশগ্রহণ করেন শহিদুল।

স্থানীয় কাউছার জানান, শেষ পর্যন্ত সাঁতার কাটা দেখেছেন তিনি। ওই সময় বৃদ্ধ শহিদুলের শরীরের কোন ক্লান্তির ছাপ লক্ষ্য করেননি বলে জানা তিনি। যদিও প্রথমে মনে হচ্ছিল পারবেন না শহিদুল। পরে ঠিকই পাড়ি দিয়েছেন ১৫ কিলোমিটার। ইচ্ছে থাকলে বয়স কখনো বাঁধা হতে পারেনা। এ ঘটনায় তা প্রমাণিত হয়েছে জানান কাউছার।

সাঁতারু শহিদুল ইসলাম তার অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, আগে থেকেই ইচ্ছে ছিল মেঘনা পাড়ি দিবো। অবশেষে স্বপ্ন পূরণ হওয়ায় ভালো লাগছে। সামনে আরো বহুপথ পাড়ি দিতে চান শহিদুল।

এ জাতীয় আরো খবর
আমাদের ফেইসবুক পেইজ